daps-school-logo

Dhaka Adventist Pre-Seminary and School
School Code (Board): 1396 || EIIN: 134794

mujib-borsho
অন্যান্য তথ্যাবলি :
অন্যান্য তথ্যাবলি :

 

ছাত্র ছাত্রীদের অবশ্যই পালনীয়:

১। ক্লাসে শতভাগ উপস্থিত থাকা ।

২। ক্লাস শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত ক্লাস রুমে থাকা।

৩। প্রতিদিনের পড়া প্রতিদিন করে আসা।

৪। সমাবেশের দিন (রবিবার) ১৫ মি. পূর্বে স্কুলে উপস্থিত হওয়া।

৫। সমাবেশে সকলকে উপস্থিত হয়ে শান্তি শৃংখলা বজায় রাখা।

৬। বিদ্যালয়ের নির্ধারিত ইউনিফর্ম পরে আসা।

৭। শ্রেণি কক্ষ পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখা।

৮। ক্লাস ক্যাপ্টেনের নির্দেশাবলী মেনে চলা।

৯। যে কোন অনুপস্থিতির কারণ দর্শীয়ে কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা ও তা অনুমোদন করিয়ে নেওয়া।

১০। শিষ্টাচার ও নিয়ম শৃংখলার প্রতি সম্মান দেখানো।

১১। শিক্ষক-শিক্ষিকাদের নির্দেশ মান্য করা।

১২। বিদ্যালয়ের পিয়ন, আয়া, ও দারোয়ানের সঙ্গে সৌজন্যমূলক আচরণ করা।

১৩। স্বর্ণালংকার পরে না আসা ও মোবাইল ফোন সঙ্গে না রাখা ও কোন প্রকার খেলাধুলার সামগ্রী না নিয়ে আসা।

 

অসুস্থ হলে করণীয়:

অসুস্থ থাকাকালীন সময়ে ছাত্র-ছাত্রীদের কোন ক্রমে ক্লাস করতে দেয়া হয় না। কোন কারণে অনুপস্থিত থাকলে, পরবর্তী যেদিন স্কুলে আসবে সেদিন অনুপস্থিতির কারণ দর্শিয়ে প্রিন্সিপালের অভিমুখে দরখাস্ত/আবেদন পত্র লিখতে হবে। অসুস্থতার জন্যে অনুপস্থিতির দরখাস্তের সঙ্গে ডাক্তারের পরামর্শপত্র সংযুক্ত করতে হবে। কোন কারণে নির্ধারিত সময় Class Test দিতে না পারলে, অনুপস্থিতির কারণ দর্শিয়ে শ্রেণি শিক্ষকের অভিমুখে ছাত্র-ছাত্রী  মারফত দরখাস্ত জমা দিলে Class Test এর ব্যবস্থা করা যেতে পারে। তবে নির্দিষ্টি টার্মের বাহিরে কোন ক্লাস টেস্ট নেওয়া যাবে না । উল্লেখ্য, নির্ধারিত সময় ব্যতীত অন্য কোন সময়ে (Class Test) নেওয়া হবে না। দুর্ঘটনা / অসুস্থতা / গ্রহণযোগ্য কোন জরুরী কারণে নির্ধারিত সময়ে Terminal Examination দিতে না পারলে, অনুপস্থিতির কারণ দর্শিয়ে প্রিন্সিপালের অভিমুখে দরখাস্ত জমা দিয়ে এক থেকে তিন বিষয় পর্যন্ত মোট ৩০০.০০ টাকা এবং চার বিষয় বা তদূর্ধ্বে মোট ৫০০ টাকা (Terminal Examination) পরিশোধ করে নির্ধারিত তারিখের মধ্যে পরীক্ষা দেয়া যাবে। 

 

সাধারণ নিয়মাবলী:

১। অশালীন ভাষা গালাগালি কিংবা অশোভন আচরণ এই স্কুলে গ্রহণযোগ্য নয়।

২। স্কুল ক্যাম্পাসে আঞ্চলিক বাংলা ভাষা গ্রহণযোগ্য নয়।

৩। স্কুলের শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখাকে ব্রত হিসেবে নিতে হবে।

৪। স্কুল ক্যাম্পাসে হইহুল্লো, মারামারি কিংবা বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি গ্রহণযোগ্য নয়।

৫। স্কুলের সম্পদের প্রতি যত্নশীল হতে হবে। যদি কেউ অসাবধানতা বশত কিছু ভেঙ্গে ফেলে তাহলে কর্তৃপক্ষের কাছে দ্রুত জানাতে হবে। ক্ষেত্র বিশেষ জরিমানা দিতে হবে।

৬। স্কুল শেষ হওয়ার পরে স্কুল ক্যাম্পাসে থাকা যাবে না।

৭। স্কুল ক্যাম্পাসের ভিতরে ঘোরাফেরা করা যাবে না।

৮। শ্রেণী কক্ষে মূল্যবান কোন জিনিস যেমন ক্যামেরা, স্বর্ণালঙ্কার, টেপ রেকডার্র, ব্লেড, চাকু, খেলার সামগ্রী, মোবাইল, ইত্যাদি আনা যাবে না।

৯। স্কুল ক্যাম্পাসে ইউনিফর্ম ব্যতিত (কোন প্রকার টুপি, স্কার্প) বা অন্য কোন সাজসজ্জায় বিভূষিত হওয়া যাবে না।

১০। স্কুল ডায়েরিতে প্রতিদিনের পাঠ সমূহ লিখে নিবে। প্রতি স্কুল দিনে ডায়েরি ও রুটিন অনুযায়ী বই-খাতা, রং পেন্সিল, স্কুলব্যাগে নিয়ে আসবে ।                                   

১১। কোন ছাত্র-ছাত্রী অন্যকে অশ্লীল ভাষায় উত্ত্যক্ত অথবা কাউকে ধাক্কা দিয়ে আহত করলে স্কুল কর্তৃপক্ষের কাছে দ্রুত জানাতে হবে এবং স্কুল কর্তৃপক্ষ তার যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

১২। পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা সৌন্দর্যের প্রতীক । তাই প্রত্যেক ছাত্র/ছাত্রীকে পরিপাটি হয়ে স্কুলে আসতে হবে। কোন প্রকার অলঙ্কার প্রসাধনী যেমন: নেইল পলিশ, লিপস্টিক ব্যবহার করা যাবে না। ছেলেদের নখ ও চুল মার্জিত ছাঁটে ছোট করে রাখতে হবে।

১৩। ১ম শ্রেণী থেকে দশম শ্রেণী পর্যন্ত সকল ছাত্র/ছাত্রী শুকনো খাবার ও পানি আনতে পারবে। কিন্তু প্লে সেক্শন, নার্সারী ও কেজি শ্রেণির কোন ছাত্র-ছাত্রীকে নাস্তা আনতে দেওয়া যাবে না, তবে পরিমাণ মতো পানি আনা যাবে।

১৪। ভুলক্রমে কোন ছাত্র-ছাত্রীর জিনিস অন্য কারো ব্যাগে চলে গেলে দয়া করে পরবর্তী ক্লাসের দিনে পাঠিয়ে দিবেন।

১৫। ক্লাশ চলাকালিন শিক্ষক/শিক্ষিকার সঙ্গে দেখা করা যাবে না।

১৬। ক্লাসের সময় শেষ হওয়ার আগে ছাত্র-ছাত্রী নেওয়া যাবে না। কিন্ত জরুরী প্রয়োজনে অফিসে জানিয়ে মাসীদের মাধ্যমে নিতে হবে।

১৭। ছোট ক্লাসের ছাত্র-ছাত্রীদের সাধারণ পেন্সিল বক্স দিতে পারবেন। খুব বেশি অকর্ষণীয় বক্স দিবেন না। এতে অন্যরা আকর্ষিত হয়, ধরতে চায়, নিতে চায় এবং তাদের মধ্যে একটি বিশৃঙ্খলা দেখা দেয়।

১৮। ক্লাসের যেকোনো সমস্যা প্রথমে শ্রেণী শিক্ষক/ শিক্ষিকাকে জানাতে হবে।

১৯। টিফিন খাওয়ানোর জন্য কোন অভিভাবক ক্লাসের ভিতরে প্রবেশ করবেন না।

২০। ছাত্র-ছাত্রীদের স্কুল ব্যাগে আভিভাবকদের কোন দ্রব্যসামগ্রী দিয়ে পাঠাবেন না

২১। বড় মেয়েরা যদি কোন শারীরিক সমস্যা অনুভব করে তবে তাৎক্ষণিক স্কুলের যে কোন শিক্ষিকা, স্কুল নার্স, অথবা (লিন্ডা রায়) মিসকে জানাতে হবে।

২২। সদাচরণ বা নিয়ম শৃঙ্খলা ভঙ্গ করলে সতর্কীকরণ Card দেওয়া হবে। প্রথম Yellow Card সতর্কীকরণ, Pink Card দ্বিতীয় সতর্কীকরণ এবং Red Card তৃতীয় সতর্কীকরণ নোটিশের পরেও যদি ছাত্র/ছাত্রীর আচরণে কোন পরিবর্তন না আসে তাহলে কৃর্তৃপক্ষ TC দিতে বাধ্য হবে।

 

সিকিউরিটি গার্ড

ছাত্র/ ছাত্রীদের নিরাপত্তা দান ড্যাপস্ এর এক অনন্য সাফল্য। কোন ছাত্র-ছাত্রীর অভিভাবক নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত কাউকে স্কুল ক্যাম্পাস ত্যাগ করার অনুমতি দেওয়া হয় না । আমাদের রয়েছে ২৪ ঘণ্টা নিরাপত্তা প্রদানের জন্য নিরাপত্তা প্রহরী। স্কুলের ছাত্র/ছাত্রীদের বিশেষ নিরাপত্তার স্বার্থে সকল অভিভাবকের নিকট বিনীত অনুরোধ আপনার গার্ডিয়ান কার্ড পান্স্ করে গলায় ঝুলিয়ে স্কুল চত্বরে প্রবেশ করবেন। অন্যথায় কোনো মতে স্কুলে প্রবেশ করা যাবে না। আপনাদের একান্ত সহযোগিতা আমাদের এই সাফল্যের চাবিকাঠি।

 

গার্ডিয়ান শেড নিয়মাবলী

স্কুল প্রাঙ্গনে অভিভাবকদের অবস্থান করতে দেয়া হয় না। সন্তানকে গেটে দিয়ে আবার ছুটির সময় আপনার কার্ড দেখিয়ে আপনার সন্তানকে নিয়ে যাবেন এটাই আমাদের প্রত্যাশা। বিশেষ প্রয়োজনে শুধু প্লে ও নার্সারী ক্লাসের ছাত্র-ছাত্রীদের মহিলা অভিভাবকাদের বার্ষিক ৩০০০.০০ (তিন হাজার টাকা) ফি দিয়ে অভিভাবিকাদের শেডে থাকার অনুমতি দেওয়া হয়। তবে আসন সংখ্যা সীমিত, আগে আসলে আগে পাওয়ার ভিত্তিতে বরাদ্দ করা হয়। গার্ডিয়ান শেডে কার্ড ছাড়া কেউ ভিতরে বসতে পারবেন না, এক কার্ড দিয়ে দুই শিফটে বসতে পারবেন না। প্রয়োজন হলে দারোয়ানকে আপনার শেড কার্ডটি দেখাতে হবে। একটি কার্ড দিয়ে একের অধিক অভিভাবক বসতে পারবেন না। গার্ডিয়ান শেডে বসে একজন গার্ডিয়ান অন্য আর একজন গার্ডিয়ানের সমালোচনা বা রাজনৈতিক কোন আলোচনা করতে পারবেন না। গার্ডিয়ান শেডে বসে কোন গার্ডিয়ান স্কুলের বিরুদ্ধে সমালোচনা করতে পারবেন না। ক্লাস ছুটি হওয়ার পর শেড খালি করে দিতে হবে। গার্ডিয়ান শেডটি শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত এবং টেলিভিশনের মাধ্যমে বিনোদনের ব্যবস্থা আছে। গার্ডিয়ান শেডে বসে কারো কোন ব্যক্তিগত অনুষ্ঠান যেমন- বিবাহ বার্ষিকী, জন্মদিন কিংবা অন্য কোন ধরণের অনুষ্ঠান পালন করা যাবে না। শেডের ভিতরে কোন প্রকার ক্রয়-বিক্রয় করা যাবে না। কোন রকম হৈ চৈ, গন্ডগোল কিংবা দল গঠন করা যাবে না। বসার সিট নিয়ে কোন প্রকার গন্ডগোল করা যাবে না। যিনি আগে আসবেন তিনি তার পছন্দমত সিটে বসতে পারবেন। আপনার যদি কোন অভিযোগ থাকে তবে স্কুলের ইন্টারকম ব্যবহার করে অফিস সহকারিকে ১৬৪ নম্বরে ফোন করে জানান। স্কুলের এই নিয়মাবলী পালনই আপনাদের কাছে আমাদের কাম্য। আপনার সিটের অধিকার বলবৎ থাকবে সকাল (মর্নিং শিফ্ট) ৭:৩৫ থেকে ১০:০০ এবং (ডে শিফ্ট) ১১:০০ থেকে ১.০০ পর্যন্ত। উক্ত নিয়ম ভঙ্গকারী অভিভাবকের শেড কার্ড বাতিল করার অধিকার স্কুল কর্তৃপক্ষের আছে।

 

বিশেষ লক্ষ্যণীয় বিষয়সমূহ:

১। গার্ডিয়ান শেড ব্যতীত কোন অভিভাবক-অভিভাবিকাকে স্কুল ক্যাম্পাসে অবস্থান করতে দেওয়া হবে না।

২। স্কুল গেটের গ্রিলের ভিতরে ছাত্র/ছাত্রী ব্যতীত কাউকে প্রবেশ করতে দেওয়া হবে না।

৩। স্কুল ছুটি হবার ১০ মিনিট পূর্বে শুধু ছাত্র/ছাত্রী (সন্তানদেরকে) নিয়ে যাবার জন্য স্কুলের সবুজ গ্রিল গেটে পর্যন্ত প্রবেশ করতে দেওয়া হবে।

৪। স্কুল ক্যাম্পাস ছাত্র/ছাত্রী ও শিক্ষকদের বিচরণ ক্ষেত্র। এখানে যাতে ছাত্র/ছাত্রীরা স্বাচ্ছন্দ্যে আনন্দ মুখর পরিবেশে থাকতে পারে তার জন্য এ ব্যবস্থা।

৫। খেলার মাঠ এবং শিশু পার্কে অভিভাবক-অভিভাবিকা প্রবেশ করতে পারবে না। এই স্থানগুলো শিশুদের বিচরণ ক্ষেত্র।